জীবন ২.০

আমাদের জীবন স্বভাবত ই আমাদের কাছে অত্যন্ত মূল্যবান।আমাদের জীবন .....

আমাদের জীবন স্বভাবত ই আমাদের কাছে অত্যন্ত মূল্যবান।আমাদের জীবন পারিপার্শ্বিক প্রভাবক দ্বারা প্রভাবিত হয়ে নানান সময়ে নানান জায়গায় পৌঁছে যায়।কখনো তা হয় খারাপ আবার কখনো বা ভালো।কিন্তু আমরা বুঝবো কিভাবে??সহজ একটি উদাহরণ দিয়ে বিষয়টি চিন্তা করা যাক।এক গ্লাস পানি,একটি বাটিতে লবণ, আরেকটি বাটিতে চিনি এবং অন্য একটি বাটিতে সামান্য লেবুর রস।সবাই হয়তো ভাবছেন যে আমি লেবুর শরবত বানানো শিখাবো।কিন্তু আসলে তা নয়।প্রথমে আমরা যদি গ্লাস এ সামান্য একটু লবন দিয়ে দেই তাহলে পানির স্বাদটা কিন্তু পরিবর্তন হয়ে যাবে,তাই না??।তাহলে এবার অন্য একটি কাজ করা যাক পানিতে একটু চিনি দিয়ে দেই।পানির স্বাদ আবার পরিবর্তন হয়ে যাবে।এবার পানি তে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস দেই,একি!!!পানির স্বাদ আবার পরিবর্তন হয়ে গেলো।হুম!!!!ঠিক,, একটু যদি আমরা বিষয়টাকে খেয়াল করি তাহলে আমরা দেখতে পারবো সেই সাধারণ এক গ্লাস পানিতে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জিনিস দেওয়ার ফলে এর স্বাদ পরিবর্তন হয়ে এখন এটি সম্পূর্ণ ভিন্ন স্বাদের একটি নতুন উপাদানে পরিণত হয়ে গিয়েছে।
এখন আমাদের সম্পূর্ণ জীবনটাকে এই এক গ্লাস পানি সাথে তুলনা করি এবং আমাদের চারিপাশের নানান জিনিস গুলোকে লবন, চিনি আর লেবুর রসের সাথে তুলনা করি যা ঐ পানির মতোন আমাদের জীবনে প্রভাব ফেলে পরিবর্তন নিয়ে আসে।লবন চিনি আর লেবুর রস যেমন পানির স্বাদ পরিবর্তন করেছে ঠিক তেমনি এই সকল জিনিস যা প্রতিটি মানুষের জীবনের সাথে সম্পৃক্ত সেই গুলোই কিন্তু আমাদের জীবনে পরিবর্তন আনে।এগুলো জিনিস ই নির্ধারন করে যে আমাদের জীবনটা কোথায় যাবে।জীবন এ কি উন্নতি হবে না অবন্নতি। তাই জীবনটাকে শুধু একটু বিষয়ে সীমাবদ্ধ না রেখে আমরা যদি জীবনটাকে নিয়ে গবেষণা করি,প্রতিটা মূহুর্ত ,প্রতিটা সময় তাহলে আমরা নিশ্চয়ই বুঝতে পারব যে কোনটা আমদের জীবনের জন্য ভালো আর কোনটা খারাপ।সব কিছুকে জীবনে নিয়ে এসে দেখি না কি হয়।জীবনকে নিয়ে এইভাবে গবেষণা করে ই আমরা বুঝতে পারব কোনটা আমাদের জন্য ভালো এবং কোন জিনিসটাকে আমরা আমাদের জীবনে আনলে আমাদের জীবন পৌঁছে যাবে অন্য পর্যায়।
সবাইকে অসংখ‍্য ধন্যবাদ।ধোর্য নিয়ে কথা গুলো পড়ার জন্য। 

আমার পোস্টগুলো ভাল লাগলে অবশ্যই আমাকে follow না করে যাবেন না।ধন্যবাদ।।।

আমার পোস্টগুলো ভাল লাগলে অবশ্যই আমাকে follow না করে যাবেন না।ধন্যবাদ।।।